January 23, 2022, 3:35 am

শিরোনাম :
নিয়োগের চূড়ান্ত সুপারিশপত্র পেলেন ৩৪ হাজার ৭৩ জন শিক্ষক মুন্সীগঞ্জ‌ে মিরকা‌দিম পৌরবাসীরা কি স্বাস্থ্য সম্মত গরুর মাংস খাচ্ছে? জ্বালানি থেকে বাড়তি টাকা তুলে সড়ক সংস্কার করা হবে নাসিকে ভোটযুদ্ধ আজ ॥ নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা গোটা নির্বাচনী এলাকা বাংলাদেশ থেকে দ্বিগুণ ইন্টারনেট ব্যান্ডউইডথ নেবে ভারত হটলাইনে চার মিনিটেই পর্চা-মৌজা ম্যাপের আবেদন শৈলকুপায় সামাজিক আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে যুবকে পিটিয়ে হত্যা নির্বাচনী সহিংসতায় আহত ব্যক্তির মৃত্যু ঝিনাইদহের শৈলকুপায় নির্বাচনি সহিংসতায় নিহত ৬ লামার কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনে সাড়ে তিন হাজার কন্ঠে উচ্চারিত ‘ইনশাল্লাহ সব সম্ভব’ শত্রুতার আগুনে পুড়ে পুড়ল ৮ দোকান
শেষ মুহুর্তে জমজমাট ভোলার পশুর হাট

শেষ মুহুর্তে জমজমাট ভোলার পশুর হাট

জুবায়ের চৌধুরী পার্থ, ভোলা:

আর মাত্র কয়েকদিন পড়েই মুসলিম সম্প্রদায়ের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব ঈদ-উল-আযহা। দিন যত খনিয়ে আসছে ততই ব্যস্ততা বাড়ছে কোরবানির জন্য পশু ক্রয়ের। তাইতো সবাই ভিড় জমাচ্ছে ভোলার পশুর হাটগুলোতে। হাট গুলোতে দেশী গরুর পাশাপাশি কিছু ভারতীয় গরুর দেখা মিলেছে। তবে হাটে বিদেশী গরুর চেয়ে দেশী গরুর চাহিদা একটু বেশী।

ভোলা সদরে পশুর হাটগুলোর মধ্যে ইলিশা বাজার, পরানগঞ্জ বাজার, গোডাউন বাজার, ভেদুরিয়া বাজার, ভেলুমিয়া বাজার, আলীনগর বাজারসহ ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় ১০ থেকে ১৫টি বাজারে গরুর বিক্রি করা হচ্ছে।

কয়েকটি হাটে সরেজমিনে ঘুড়ে দেখা যায়, হাটগুলোতে প্রাধান্য পাচ্ছে দেশীয় গুরু। দেড় মন ওজনের দেশী ছোট গরু বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা। দুই মন ওজনের গরু বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৫ হাজার টাকা। আর বড় সাইজের তিন খেকে সাড়ে তিন মন ওজনের গরু বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা। অন্যদিকে গতবাড়ের তুলনায় এবারে ছাগলের দাম একটু বেশী। ১২ থেকে ১৪ কেজি ওজনের ছাগলের দাম ধড়া হচ্ছে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা। ১৫ থেকে ১৮ কেজি ওজনের ছাগলের দাম ধড়া হচ্ছে ১৩ থেকে ১৫ হাজার টাকা। ২০ থেকে ২৫ কেজি ওজনের ছাগলের দাম ধড়া হচ্ছে ১৮ থেকে ২০ হাজার টাকা।

হাটে আসা কবির ফরাজি বলেন, গত বারের তুলনায় এবারের দেশী গরুর দাম অনেকটা বেশী। পশু খাদ্যের দাম ও পরিবহন খরচের অযুহাতে বিক্রেতারা দাম বাড়িয়ে নিচ্ছে। ফলে আমাদের মত মধ্যবিত্ত পরিবারের পক্ষে এতো টাকা দিয়ে গরু কিনা আমার মনে হয় সম্ভব হবে না।

তবে বিক্রেতারা বলছেন ভিন্ন কথা, তারা বলছেন দৈননিন্দ সব কিছুর দাম বাড়ছে। পশু খাদ্যে বস্তা প্রতি ২০০ থেকে ৪০০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। পশুর খাদ্যে, ঔষদ, পরিবহন খরচ সব মিলিয়ে আমরা গরু বিক্রির দাম নির্ধারন করছি। আমাদেরওতো চলতে হবে, তা না হলে আমাদের যে না খেয়ে মরতে হবে।

হাটের ইজারাদাররা জানান, হাটে ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী পর্যাপ্ত দেশী গরু উঠেছে। তারা বলেছেন গরুর দাম সাধারন মানুষের নাগালের মধ্যেই রয়েছে। গরুর দাম বৃদ্ধি প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসা করলে হাটের বলেন শুরুর দিকের তুলনায় শেষের দিকে গরুর দামটা সাধারন মানুষের নাগালের মধ্যে চলে আসবে।

শেয়ার করুন




গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে বিধি মোতাবেক আবেদিত
Design & Developed BY ThemesBazar.Com